শুক্রবার , ২৩ জুন ২০২৩ | ২০শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ঈশ্বরদী
  5. করোনাভাইরাস
  6. কৃষি
  7. ক্যাম্পাস
  8. খেলাধুলা
  9. গল্প ও কবিতা
  10. চাকরির খবর
  11. জাতীয়
  12. তথ্যপ্রযুক্তি
  13. তারুণ্য
  14. ধর্ম
  15. নির্বাচন

এক কোটি ৮৫ লাখ টাকা আত্মসাতের ৪ বছর পর
বিএনপি নেতা ইমরুল কায়েস সুমনসহ সাউথ ইস্ট ব্যাংক লিমিটেড ঈশ্বরদী শাখার ৪ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

প্রতিবেদক
আমাদের ঈশ্বরদী রিপোর্ট :
জুন ২৩, ২০২৩ ৭:১০ অপরাহ্ণ

এক কোটি ৮৫ লাখ ৯০ হাজার টাকা আত্মসাতের ঘটনায় ৪ বছর পর অবশেষে বিএনপি নেতা ইমরুল কায়েস সুমন (৪০) ও সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড ঈশ্বরদী শাখার ব্যবস্থাপক মোশতাক আহমেদ (৪২) এবং ব্যাংকের চার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বুধবার (২১ জুন/২৩) দুর্নীতি দমন কমিশনের পাবনা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক সাধন কুমার সূত্রধর বাদী হয়ে এ মামলা করেন।
মামলার আসামীরা হলেন, সাউথ ইস্ট ব্যাংক লিমিটেড ঈশ্বরদী শাখার অপারেশন ম্যানেজার ও ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার ভালুকা গ্রামের আজিমুদ্দিন শেখের ছেলে মোঃ নজরুল ইসলাম (৫৩), ব্যাংকের জুনিয়র অফিসার বগুড়ার গাবতলী উপজেলার তরফ সরতাজ গ্রামের মোঃ নায়েব আলীর ছেলে শামীম আহমেদ (৩৬) এবং ব্যাংকের ট্রেইনি ক্যাশ অফিসার রাজশাহীর পবা উপজেলার কালুম গ্রামের মোঃ আব্দুল হাকিমের ছেলে মোঃ ইমরান (৩২) ।

পদ্মার বালু নিয়ে বিরোধ : ঈশ্বরদীতে প্রতিপক্ষের গুলিতে ছাত্রলীগকর্মী নিহত

গত বৃহস্পতিবার ( ২২ জুন ) বিকেলে দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা পাবনা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক খায়রুল হক এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আসামী ইমরুল কায়েস সুমন “মেসার্স কায়েস এন্টারপ্রাইজের” মালিক এবং পাবনা ঈশ্বরদী উপজেলার বিমানবন্দর সড়কের পৌরসভার রহিমপুর এলাকার আব্দুল মহিত বিশ্বাসের ছেলে। আর সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড ঈশ্বরদী শাখার ব্যবস্থাপক মোশতাক আহমেদ রাজশাহীর তেরখাদিয়া পশ্চিমপাড়া এলাকার ফারুখ আহমেদের ছেলে।

দুদক ও দায়ের করা এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত ২০১৯ সালের ৪ এপ্রিল সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড ঈশ্বরদী শাখার অভিযুক্তরা পরস্পর যোগ সাজছে নিজেদের স্বার্থে কোনো প্রকার নগদ টাকা গ্রহণ না করেই চার কিস্তিতে ব্যবসায়ী ইমরুল কায়েস সুমনকে ৩ কোটি ৫৮ লাখ টাকার পে-অর্ডার দেন। অনেক দেন দরবারের পর ইমরুল কায়েস সুমন ব্যাংকটিতে এক কোটি ৩৫ লাখ টাকা জমা দেন। এরপরে আর কোনো টাকা না দিয়েই ইমরুল কায়েস সুমন ২০২২ সালের ১৩ নভেম্বর আত্মগোপন করেন। পরে ব্যাংক ইমরুল কায়েস সুমনের অন্যান্য হিসেবসহ বিভিন্নখাত থেকে আরও ৩৮ লাখ ২৫ হাজার ৩২৮ টাকা আদায় করে।

সূত্র আরও জানায়, দীর্ঘ অনুসন্ধান শেষে পে-অর্ডার দেওয়ার ক্ষেত্রে ব্যাংক কর্মকর্তারা ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলে দুর্নীতির আশ্রয় নিয়েছেন বলে প্রমাণ পায় দুদক। এছাড়া ব্যবসায়ী ইমরুল কায়েস সুমনের পে-অর্ডার ভাঙিয়ে টাকা আত্মসাতের অভিযোগও প্রাথমিকভাবে প্রমাণিত হয়। এসব প্রমান পাওয়ায় ব্যবসায়ী ইমরুল কায়েস সুমন ও সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড ঈশ্বরদী শাখার ৪ কর্মকর্তাসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দুদকের পক্ষ থেকে মামলা করা হয়েছে।
সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেডের পরিচালনা পরিষদসহ ঈশ্বরদী শাখা সুত্র মতে, বিএনপি নেতা ইমরুল কায়েস সুমন মেসার্স কায়েস এন্টারপ্রাইজ এর স্বত্বাধিকারী। তিনি পাবনা জেলার ঈশ্বরদী ,আটঘড়িয়া, চাটমোহর,ভাঙ্গুড়া, ও ফরিদপুর উপজেলার মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিস (বিকাশ) ও রবিসহ ইউনিলিভার বাংলাদেশের ডিলারসহ প্রথম শ্রেণীর ঠিকাদার ছিলেন। ব্যাংকটিতে সুমনের হিসাব নম্বরে টাকা লেনদেনের সুত্রধরেই ব্যাংকের ওই কর্মকর্তাদের সঙ্গে সুমনের সখ্যতা গড়ে ওঠে। ব্যাংকের ওই চার কর্মকর্তা ব্যক্তি নিজেরা আর্থিক লাভের আশায় পরস্পরের যোগসাজছে ব্যবসায়ী ইমরুল কায়েস সুমনকে কোটি কোটি টাকা প্রদান করতেন। এই জন্য শাখাটির ব্যবস্থাপক ব্যবসায়ী সুমনের নিকট থেকে দুটি ফাঁকা চেকের পাতা রেখে দিতেন। দিন শেষে ব্যবসায়ী সুমন ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপকের সঙ্গে চুক্তি অনুসারে লভ্যাংশসহ ব্যাংকে জমা দিতেন। কিন্তু ঘটনার দিন ব্যবসায়ী সুমন ৩ কোটি ৫৮ লাখ টাকার প্রদান করেন। এরপর সুমন টাকা নিয়ে আত্মগোপনে চলে যান। পরে ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্তে শাখাটির ব্যবস্থাপকসহ চার কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়। একই সঙ্গে টাকা আত্মসাতের মামলা করা হয়।

দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক খায়রুল হক বলেন, সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেডের পক্ষ থেকে ওই পাঁচজনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করা হয়েছিলো। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি গত বছর দুদকে প্রেরণ করেন। এরপর মামলা গুরুত্বের সঙ্গে অধিকর তদন্ত করে ওই পাঁচজনের বিরুদ্ধে পরস্পরের যোগসাজছে অর্থ আত্মসাতের প্রমান পাওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আসামিরা সবাই পলাতক। যেকোন সময় তাদের গ্রেফতার পুর্বক জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে মামলার চার্জশিট দেওয়া হবে। তবে আসামী ইমরুল কায়েস সুমন যেনো দেশের বাইরে পালিয়ে যেতে না পারে সেইজন্য আদালতের মাধ্যমে বন্ধ করা হয়েছে।

সর্বশেষ - ঈশ্বরদী

error: Content is protected !!