শুক্রবার , ১০ মার্চ ২০২৩ | ৩রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন ও আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ঈশ্বরদী
  5. করোনাভাইরাস
  6. কৃষি
  7. ক্যাম্পাস
  8. খেলাধুলা
  9. গল্প ও কবিতা
  10. চাকরির খবর
  11. জাতীয়
  12. তথ্যপ্রযুক্তি
  13. তারুণ্য
  14. ধর্ম
  15. নির্বাচন

ঈশ্বরদীর রেলগেটে জনজীবন দিনে সাত ঘণ্টাই আটকে থাকে 

প্রতিবেদক
আমাদের ঈশ্বরদী রিপোর্ট :
মার্চ ১০, ২০২৩ ১০:৫৭ অপরাহ্ণ

পাবনার ঈশ্বরদী শহরের রেলগেটটি চলমান জীবনযাত্রায় চরম দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রতিদিন ২৮ বার জনজীবন থমকে থাকে রেলগেট বন্ধ থাকার কারণে। যানজটের কবলে পড়ে উভয় প্রান্তের চলাচলকারীদের ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হয়। শিক্ষার্থী, রোগী পরিবহনের অ্যাম্বুলেন্স, জরুরি সেবাদানকারী ফায়ার সার্ভিসের গাড়িও আটকে থাকে। সম্প্রতি ট্রেনের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় এ ভোগান্তি আরও প্রকট হয়েছে। ভোগান্তি নিরসনে বিকল্প ব্যবস্থার দাবি জানিয়েছে নাগরিক সমাজ।

ঈশ্বরদী রেলস্টেশন সূত্রে জানা গেছে, রেলগেট দিয়ে প্রতিদিন ২৮টি ট্রেন চলাচল করে। এর মধ্যে রয়েছে আন্তঃনগর (আপ-ডাউন) ১৮, মেইল ট্রেন (আপ-ডাউন) ৪, মৈত্রী এক্সপ্রেস ২ ও মালবাহী ট্রেন ৪টি। ঈশ্বরদীর এই লেভেলক্রসিং রেলগেটটি পুরাতন রিলে ইন্টারলকিং পদ্ধতিতে বন্ধ ও খোলা হয়। ১৯৮৫ সালে ঈশ্বরদী, পার্বতীপুর ও সান্তাহার স্টেশনে এ পদ্ধতি চালু করা হয়।

রেলগেটটি ঈশ্বরদী শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত। এর উত্তরে জংশন স্টেশন। নিকটেই কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল। পূর্ব-পশ্চিম সড়কের সংযোগস্থল ছাড়াও রেলগেটের ওপর দিয়ে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প, ঈশ্বরদী ইপিজেড, পাকশী রেলওয়ে বিভাগীয় অফিস, উপজেলা সড়ক ও রাজশাহী পর্যন্ত সড়কপথে যোগাযোগ রয়েছে। দিন দিন রেলগেট দিয়ে যানবাহন চলাচল বাড়ছে। দিনে ২৮ বার রেলগেট বন্ধ থাকায় লেভেলক্রসিংয়ে যানজটের কবলে পড়ে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে যাত্রীসাধারণের।

সরেজমিন দেখা গেছে, রেলগেটের পশ্চিম প্রান্তে রয়েছে উপজেলা পরিষদসহ ১৭টি সরকারি দপ্তর, বিমানবন্দর, সাব-রেজিস্ট্রি অফিস, বিভাগীয় রেলওয়ে পে অ্যান্ড ক্যাশ অফিস, দুটি স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ২০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থাসহ গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান।

রেলগেট পার হয়ে উভয় প্রান্তে যাতায়াতে শুধু পথচারী ও যানবাহন নয়, ভোগান্তিতে পড়তে হয় স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের। বিশেষ করে সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৩টার মধ্যে কয়েকটি আপ-ডাউন ট্রেন চলাচলে এ ভোগান্তি আরও বেড়ে যায়।

ঈশ্বরদী ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন ওয়্যারহাউস ইনচার্জ অপু কুমার মণ্ডল বলেন, অগ্নিনির্বাপণ বা জরুরি সেবামূলক কাজে পূর্ব প্রান্ত থেকে পশ্চিম প্রান্তে যাওয়ার সময় রেলগেটে প্রায়ই যানজটের কবলে পড়তে হয়। আটকে থাকার কারণে অনেক সময় ঘটনাস্থলে দ্রুত পৌঁছানো যায় না।

জানতে চাইলে এলজিইডির ঈশ্বরদী উপজেলা কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী এনামুল কবির বলেন, ঈশ্বরদী রেলগেটে ফ্লাইওভার নির্মাণে বাংলাদেশ রেলওয়ের আপত্তি নেই। উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে দেখা করে এখানে ফ্লাইওভার না থাকায় জনদুর্ভোগের বিষয়টি তুলে ধরেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্যও। এখানে ফ্লাইওভার নির্মাণের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

সর্বশেষ - ঈশ্বরদী

error: Content is protected !!